দুর্গাপুরে গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যুকে ঘিরে ধুন্ধুমার কান্ড, আটক স্বামী ও শ্বাশুড়ি

আমার কথা, দুর্গাপুর, ১৬সেপ্টেম্বরঃ

এক গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার কান্ড দুর্গাপুরের সুকান্তপল্লী এলাকায়। মৃতার নাম বৈশাখী ঠাকুর। মৃতার শ্বশুরবাড়ি থেকে তার ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয়। ওই গৃহবধূকে খুন করা হয়েছে এই অভিযোগে এলাকাবাসী ভাঙচুর চালালো গৃহবধূর শ্বশুরবাড়িতে। পুলিশ মৃতার স্বামী ও শ্বাশুড়িকে আটক করেছে।
প্রসঙ্গতঃ মাত্র নয় মাস আগে উখড়ার বৈশাখী শর্মার সাথে বিয়ে হয় ধান্ডাবাগের বাসিন্দা পেশায় ইঁট বালি সিমেন্টের ব্যবসায়ী রাজেশ ঠাকুরের। বিয়ের সময় পেশায় রঙ মিস্ত্রি বৈশাখীর বাবা নীলকন্ঠ শর্মা তাঁর সাধ্যমতো যৌতুক দেন। কিন্তু তাদের অভিযোগ বিয়ের পর থেকেই বৈশাখীর ওপর শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার চালাতো তার শ্বশুরবাড়ির পরিবার। এমনকি বৈশাখীকে ঠিক মতো তার বাপেরবাড়িও আসতে দিতো না তাঁরা। পাশাপাশি এও অভিযোগ উঠছে বৈশাখীর স্বামীর অন্য কোনো মহিলার সাথে অবৈধ সম্পর্ক ছিল, আর তা নিয়ে বৈশাখী কিছু বলতে গেলেই তাকে প্রাণে মেরে দেওয়ার হুমকি দিত রাজেশ।
জানা গেছে গতকাল রাতে বৈশাখীর বাপেরবাড়িতে তাদের মেয়ের সম্বন্ধে খবর যায়। তাঁরা এসে দেখেন বন্ধ ঘরে বৈশাখী গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলছে। মৃতার শ্বশুরবাড়ি থেকে এটি আত্মহত্যা বলে দাবি করে। কিন্তু বৈশাখীর বাবার অভিযোগ তার মেয়ে আত্মহত্যা করেনি, তাকে মেরে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। কারন রাত ৮টা ৩০নাগাদ বৈশাখীর সাথে তার কথা হয়। কিন্তু মেয়ের কথাতে কোনো অস্বাভাবিক কিছু মনে হয়নি।
খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে গৃহবধূর মৃতদেহ উদ্ধার করে। সাথে পৌঁছয় মৃতার বাপেরবাড়ির পরিবার। তাঁরা এসেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন। এদিকে এলাকাবাসীরাও উত্তেজিত হয়ে পড়েন। তাঁরা মৃতার শ্বশুরবাড়িতে ব্যাপক ভাঙচুর চালায়। একটি চারচাকার গাড়ি সহ ৩টে বাইক ভেঙ্গে দেওয়া হয়। তারপর ভাঙ্গচুর চালান হয় রাজেশ ঠাকুরের বাড়িতেও। বাড়ি সংলগ্ন রাজেশের অফিস ও একটি ট্রাক ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয় উত্তেজিত এলাকাবাসীরা। পরিস্থিতি ক্রমশ জটিল হয়ে উঠতে শুরু করলে ঘটনাস্থলে পৌঁছন এসিপি বিমল মন্ডল। বাধ্য হয়ে কমব্যাট ফোর্স নামে। বসানো হয় পুলিশ পিকেট।